ভাল্লাগসেভাল্লাগসে মাইরালামাইরালা কস্কি মমিনকস্কি মমিন সেন্টি খাইলামসেন্টি খাইলাম

সিলেটে রেস্টুরেন্টে পুরি খেতে চাওয়ায় তুমুল মাইর খেলেন NSU-এর এক শিক্ষার্থী

সিলেটে রেস্টুরেন্টে ঢুকে পুরি খেতে চাওয়ায় মেরে তক্তা বানিয়ে দেওয়া হয়েছে নর্থসাউথের অমিত নামের এক ছাত্রকে। জানা যায় যায় সিলেট বন্ধুদের সাথে ঘুরতে গিয়েছিলেন তিনি। বাসায় থাকা অবস্থায় প্রতিদিন সন্ধ্যাবেলা পুরি খাওয়াটা অমিতের রোজকার রুটিনের অংশ। তারই অংশ হিসেবে সিলেট ঘুরতে গিয়েও তার পুরি খাওয়ার ক্রেভিং উঠলে তিনি এক রেস্টুরেন্টে ঢুকে ওয়েটারকে বলেন “মামা পুরি দাও তো খাবো”। আর সাথে সাথেই চিৎকার দিয়ে- “কিতা মাতো” বলে বাকি ওয়েটারদের ডেকে ইচ্ছা মতন মেরে তক্তা বানিয়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের করে দেন। পরে অমিত তার বন্ধুদের ডেকে গ্যাঞ্জাম করার জন্য নিয়ে গেলে, তাদেরকেও মেরে একেকজনকে চেয়ার, টেবিল এবং অন্যন্য আসবাবপত্র বানিয়ে দেওয়া হয়।
এ ব্যাপারে রেস্টুরেন্টের মালিকের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি আরও ক্ষেপে গিয়ে আমাদের প্রতিনিধিকে মাইরের ভযা দেখলে আমাদের সাহসী প্রতিনিধি সুযোগ বুঝে কেটে পড়েন। তবে অমিত কাঁদতে কাঁদতে আমাদের প্রতিনিধিকে বলেন- “সামান্য পুরি খেতে চাইলে কেউ এভাবে মারে, মানবতা আজ কুতায়। সিলেটে পুরি মানে কি এইটা কি আমি জানতাম বলেন? জানলে তো আর পুদিনা চাটনির সাথে পুরি খেতে চাইতামনা।”

এদিকে অমিতের এই ঘটনা শোনার পর থেকে পুরি লাভাররা সিলেট যেতে ভয় পাচ্ছেন, অনেকে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। পুরি খাইতে দিতেই হবে এই স্লোগানের ব্যানারে অনেকে মিছিল বের করেছেন শহরের বিভিন্ন এলাকায়। তবে আন্দোলনকারীদের গরম গরম পুরি মেরে ছত্রভঙ্গ করে হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

আন্দোলনকারী একজন গরম গরম বুদ্ধুর ডালপুরি খাওয়ানোর শর্তে আমাদের বলেন- “যদি পুরি খাইতে না দেওয়া হয়, তবে আমরা আর কোনোদিন সিলেট যাবো না। সিলেটি পুরি আমরা খাবোই খাবো, এটাই আমাদের আন্দোলনের দাবি।”

বিঃদ্রঃ পীথাগোরাস একদা বলেছিলেন – “ইন্টারনেটে প্রচলিত ৯৯.৯৯% জিনিসই ভুয়া” সুতরাং যেখানে যা দেখেন তা যদি বিশ্বাস করার অভ্যাস/বদভ্যাস আপনার থেকেই থাকে তাহলে তার দায়ভার সম্পূর্ণ আপনার।

Written by Bishal Dhar

নাম ধাম তো দেখসেন আর কি দেখেন , অতিরিক্ত কৌতুহল ভালো না যান লেখা পড়েন

যে ৬টি কারণে “ন’ ডরাই” সিনেমাটি আপনার অবশ্যই দেখা উচিত

Quiz: ৬টি উত্তর দিয়ে জেনে নিন কোন আন্ডাররেটেড মুভির সাথে আপনার জীবন মিলে?